মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

ঋণ প্রাপ্তী

ঋণ প্রাপ্তী/কৃষি ঋণ নেওয়ার নিয়মাবলী

 

যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ঋণ প্রদানঃ আন্তকর্মসংস্থান ও ঋণ দান কর্মসূচীঃ প্রিশিক্ষিত যুব/যুব মহিলাদের আত্নকর্মসংস্থান প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ঋণ প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে, স্ব-স্ব উপজেলা কার্যালয়ের মাধ্যেম। (ক) পারিবার ভিত্তিক কর্মসংস্থান কর্মসূচী (দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচী)- এ কর্মসূচীর আওতায় বেকার যুবদের পারিবারিক গ্রুপ সংগঠিত করে ঋণ প্রদান করা হয়। গ্রুপের সদস্য সংখ্যা ০৫ জন। প্রথম ৭০০০/ হতে পঞ্চম দফায় ১১০০০/- পর্যন্ত ঋণ প্রদবন করা হয়। শুধু মাত্র মিঠাপুকুর উপজেলা কার্যালয়ের মাধ্যমে। (খ) যুব প্রশিক্ষণ ও আত্নকর্মসংস্থানঃ প্রশিক্ষিত যুবদের আত্নকর্মসংস্থানমূলক প্রকল্প বা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রাতিষ্ঠানিক ট্রেডে ২৫০০০/- থেকে ৫০০০০/- এবং অপ্রতিষ্ঠানিক ট্রেডে ১০০০০/- থেকে ২৫০০০/- উপজেলা কার্যালয়ের মাধ্যমে ঋণ প্রদান করা হয়। ০৩। যুব সংগঠনের তালিকা ভূক্তি করণঃসেচ্ছা-সেবি যুব নিয়ম নীতি অনুসারে দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ডে আরও সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করানোর লক্ষ্যে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর কর্তৃক তালিকা ভুক্তি করা হয় এবং ভাল কাজের স্বীকৃতী স্বরূপ অনুদান প্র্রদান করা হয়। ০৪। জাতীয় যুব পুরষ্কারঃ যে সকল প্রশিক্ষিত সফল যুব/যুব মহিলা আত্নকর্মসংস্থান প্রকল্প স্থাপনে দৃষ্টান্তমূলক অবদান রাখতে সক্ষম হন তাদেরকে জাতীয় যুব পুরষ্কার প্রদান করা হয়। ০৫। স্বেচ্ছাসেবি যুব সংগঠন অনুদানঃ ১)যুব সংগঠন কর্তৃক গৃহীত আয় সঞ্চারণমূলক প্রকল্প সম্প্রসারণের লক্ষ্যে যুব কল্যাণ তহবিল ও অনুন্নয়ন খাত থেকে অনুদান প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে। ২) সফল যুব/যুব সংগঠকদের কর্মের স্বীকৃতি হিসাবে কমনওয়েখ পুরষ্কার, সার্ক ইয়ুথ অ্যাওয়াড প্রদান সহ যুব বিনিময় কর্মসূচীর আওতায় বিদেশ ভ্রমণের সুযোগ রয়েছে। ০৬। মানব সম্পদ উন্নয়ন কার্যক্রমঃ যুব সমাজের সামাজিক অর্থনৈতিক ও মানবিক গুনাবলীর উন্নয়ন সাধনের লক্ষ্যে জাতীয় ও আঞ্চলিক পর্যায়ে উচ্চতর প্রশিক্ষণ, সেমিনার, কর্মশালা, সিম্পোজিয়াম, যুব সমাবেশ, প্রকাশনা ও প্রেষণা দানের ব্যবস্থা রয়েছে। জাতীয় উন্নয়নে সার্বিক কর্মকান্ডে যুবক ও যুব মহিলাদের অংশ গ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিঃ দ্রঃ বিস্তারিত তথ্যের জন্য জেলা/উপজেলা কার্যালয়যোগাযোগ করা যেতে পারে। জেলা সমাজসেবা কার্যালয় আর্থ সামাজিক উন্নয়ন সেবা (সুদমুক্ত ঋণ) পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম ও পল্লী মাতৃকেন্দ্র কার্যক্রমঃ গ্রাম নির্বাচন, পরিবার জরিপের মাধ্যমে দল গঠন, আর্থ সামাজিক উন্নয়নে প্রশিক্ষণ প্রদান, দলের সদস্যগণের মধ্যে ৫,০০০/ -টাকা হতে ৩০,০০০/- টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান। কৃষি ঋণের প্রকারভেদ কৃষি ঋণ শব্দটি আনেক ব্যাপক। এর মধ্যে রয়েছে আনেকগুলো ভাগ। যেমন- শস্য ঋণ, মত্স্য ঋণ, পোল্ট্রী ও ডেইরী ঋণ। শস্য ঋণ ব্যতীত অন্যগুলো প্রকল্প ভিত্তিক। শস্য ঋণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক নির্ধারিত উত্পাদন পরিকল্পনা আছে এবং এখানে ঋণ বিতরণের সীমা নির্ধারিত। মত্‍স্য ঋণ : মত্‍স্য ঋণ হয়ে থাকে পারিবারিকভাবে/ পুকুরের পরিমান অনুযায়ী। এখানে উল্লেখ্য যে, পুকুর পুনঃনন প্রকল্পতেও ঋণ দেওয়া হয়। কার্প জাতীয় মাছ যেমন -কাতলা, রুই এছাড়া চিংড়ি ঘেড় অনুযায়ী সবোর্চ্চ ঋণের সীমা হতে পারে ২ কোটি টাকা পযর্ন্ত। এবং সর্বনিম্ন আধাবিঘা পর্যন্ত দশ থেকে পনের হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া হয়ে থাকে।সূদের হার ৮%। পোল্ট্রী ঋণ : পোল্ট্রী বার্ডস অনুযায়ী ঋণ হয়। এগুলোর ক্ষেত্রে আবার ভাগ রয়েছে যেমন-লেয়ার, ব্রয়লার এবং দেশী মুরগী। এখানে হাউসহোল্ড অনুযায়ী লোন ১০-১৫,০০০/- টাকা। ফার্ম হলে ২০/২৫,০০০-কোটি টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হয়। ডেইরী ঋণ : ডেইরী ঋণ দুগ্ধ গাভী প্রতি ২৫,০০০/- টাকা, হালচাষ করা গরুর জন্য ২০,০০০/- টাকা এবং মহিষের জন্য ২০,০০০/- টাকা।


Share with :

Facebook Twitter